কালোজিরার উপকারিতা নিমিষেই দূর করে জটিল-কঠিন রোগ

কালোজিরার উপকারিতা : প্রিয় পাঠক, কালোজিরা একটি ম্যাজিক ফসল।শুধু খাবারে স্বাদ বৃদ্ধিতে নয় এটি আয়ুর্বেদিক ইউনানী ও কবিরাজি চিকিৎসা কাজেও বহু ব্যবহার হয়। কালোজিরাকে সকল রোগের মহৌষধ বলা হয়।আমাদের নিয়মিত আয়োজন টিপস্ এন্ড ট্রিকস এর আজকে পর্বে আলোচনা করব ভেষজ গুণ সমৃন্ধ কালোজিরার খাওয়ার উপকারিতা ও ব্যবহার করার নিয়ম।

কালোজিরা সকলেই চেনে।বাঙালীরা বিভিন্ন ধরণের খাবারের এই সুস্বাদু কালোজিরা ব্যবহার করে।আয়ুর্বেদিক ইউনানী ও কবিরাজি চিকিৎসাতে এটির ব্যাপক ব্যবহার রয়েছে।কালোজিরা মসলা হিসেবেও ব্যাপক চাহিদা রয়েছে।কালোজিরার বীজ থেকে একধরণের ভেষজ তেল তৈরি করা হয়, যা মানব শরীরের জন্য খুবই উপকারী।কালোজিরাকে ইংরেজীতে নাইজেলা সীড হিসেবে পরিচিত।

 

কালোজিরা সাধারণত খাবারের ফোড়ন হিসেবে ব্যবহার হয়। যেকোনো খাবারে কালোজিরা দিলে খাবারের স্বাদ ও পুষ্টিগুণ অনেক অংশেই বাড়িয়ে দেয়। এছাড়াও প্রাচীন কাল হতেই কালোজিরা বিভিন্ন রোগের প্রতিষেধক ও প্রতিরোধক হিসেবে ব্যবহার হয়ে আসছে।ভেষজ গুণ সমৃন্ধ কালোজিরাতে অনেক ধরণের পুষ্টি বিদ্যামান থাকে।প্রোটিন,ভিটামিন-বি,নিয়াসিন ক্যালসিয়াম,কপার, ফসফরাস,আয়রণ ও জিংক সহ বিভিন্ন ধরণের পুষ্টি উপাদান থাকে।তাই কালোজিরা আমাদের দেহকে বিভিন্ন রোগ থেকে রক্ষা করে।

 

কালোজিরার উপকারিতা জেনে নেই…..

১/কালোজিরা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়ঃ-

কালোজিরা সকল রোগের মহৌষধ হিসেবে পরিচিত। শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে বহু গুণে বৃদ্ধি করে। কালোজিরা যেকোনো জীবানুর বিরুদ্ধে কাজ করে দেহকে প্রস্তুত করে স্বাস্থের উন্নতি ঘটায়। নিয়মিত কালোজিরা খেলে আমাদের সকল অঙ্গপ্রত্যঙ্গ গুলো অধিকাংশে সতেজ করে তুলে।

 

২/কালোজিরা পেটের সমস্যা দূর করেঃ-
যাদের নিয়মিত পেট খারপ হয় তাদের জন্য কালোজিরা খুবই কার্যকরী। সামান্য তাপে কালোজিরা ভেঁজে নিয়ে তা গুড়ো করে ৫০০ মিলিগ্রাম হারে ৭-৮ চা চামচ দুধের সাথে মিশ্রণ করে নিয়ম করে প্রতিদিন সকাল বিকালের টানা ৭ দিন ধরে খেলে আপনার পেটের সমস্যা নিমেষেই দূর হয়ে যাবে।

 

৩/মস্তিষ্কে রক্ত চলাচলা বৃদ্ধি করে কালোজিরাঃ-
নিয়মিত কালোজিরা খেলে রক্ত চলাচলা বহু অংশে বৃদ্ধি করে।ফলে শরনশক্তি খুবই বৃদ্ধি পায়।সাথে এটি শরীরের প্রাণ শক্তি বাড়ায় ও শরীরে ক্লান্তি দূর করে।

 

৪/ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রেণে কালোজিরাঃ-
মধুর সাথে কালোজিরা মিশ্রণ করে প্রতিদিন সকালে খেতে পারেন। মধু ও কালোজিরা ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে খুবই কার্যকরী ভূমিকা পালন করে।কালোজিরা ডায়াবেটিস আক্রান্ত রোগিদের রক্তের গ্লুকোজ কমিয়ে দেয় যা সহজেই ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে কাজ করে।

 

৫/কালোজিরা হজম শক্তি বৃদ্ধি করেঃ-
যাদের হজমের সমস্যা হয় তারা নিয়মিত কালোজিরা খেতে পারেন।কালোজিরা হালকা গরম করে বেটে গুড়ো করে দিযে পানির সাথে মিশিয়ে ২/৩ চামচ করে প্রতিদিন ২/৩ বার করে খেয়ে নিন।এভাবে নিয়ম করে এক মাস খেলে আপনার হজম সমস্যা দূর করে হমজ শক্তিকে বহু অংশে বৃদ্ধি করবে।

 

৬/ বাতের ব্যথা দূর করেঃ-
অধিকাংশ মানুষ একটা নিদিষ্ট সময়ের পর বাত ব্যথার ভোগেন। বাতের ব্যথা দূর করতে আপনি কালোজিরার তেল ব্যবহার করতে পারেন। ব্যথা করার স্থানে পরিষ্কার পানি দিয়ে ধুয়ে মুজে নিন। তারপর সেই জায়গায় কালোজিরার তেল দিয়ে ভালোভাবে মালিশ করে নিন।দেখবেন অনেক অংশেই আগের চেয়ে ব্যথা কমে ভালো অনুভব করছেন।এছাড়া এক চামচ কালোজিরার সাথে এক চামচ কাঁচা হলুদের রস ও এক চামচ মধু মিশিয়ে দিনে নিয়ম করে তিন বার খাবেন।এক মাস ব্যবহারে ফলে আপনার শরীরে বিভিন্ন ব্যথা দূর করবে।কালোজিরার তেল শরীরে বাসা বাধা রিউমেটিক দূর করে।

 

৭/সর্দি কাশি দূর করে কালোজিরাঃ-সর্দি কাশি দূর করতে কালোজিরা খুবই উপকারী। লাল চায়ের সাথে এক চামচ মধু মিশিয়ে সাথে কিছু কালোজিরা দিযে চা পান করলে সর্দি কাশি গলার আটকে থাকা কফ,গলা ব্যথা দূর করতে সাহায্য করে।দিনে তিনবার নিয়ম করে খেতে হবে এটি।এছাড়াও মধু ও তুলসি পাতার রসের সাথে কালোজিরা মিশ্রণ করে খেলে সরইদ-কাশি দূর হয়।প্রচন্ড মাথা ব্যথা দূর করে কালোজিরা।

 

৭/হাঁপানি ও শ্বাসকষ্ট উপশম করে কালোজিরাঃ- যাদের হাঁপানি বা শ্বাসকষ্ট আছে তারা কালোজিরা খেতে পারেন।কিছু কালোজিরার সাথে মধু মিশিয়ে খেলে অনেক অংশেই হাঁপানি ও শ্বাসকষ্ট উপশম হয়।

 

পাঠক, কালোজিরা সকল রোগের মহৌষধ হিসেবে পরিচিত। উপরুক্ত সমস্যা গুলো ছাড়াও ব্লাড পেসার, রক্ত সঞ্চলন ক্ষমতা বৃদ্ধি, হৃদরোগ ঝুকি কমায়।এটি খাবারে স্বাদ বৃদ্ধির পাশাপাশি বিভিন্ন আয়ুবেদিক চিকিৎসার ব্যবহৃত হয়ে থাকে।কালোজিরা তেল শরীরের জন্য খুবই উপকারি।ধন্যবাদ।

 

নিম পাতার যত ঔষধিগুণ । চুলের যত্নে নিম পাতার যত ব্যবহার